ঢাকা ০৮:১৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সরাইল আশুগঞ্জ উপনির্বাচনে উকিল আব্দুস সাত্তারের মনোনয়ন দাখিল

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধিঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল আশুগঞ্জ) আসনের আসন্ন উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়ার পক্ষে তার ছেলে মাঈনুল ইসলাম তুষার মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন।

বুধবার (৪ জানুয়ারী) বিকেলে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে সাবেক বিএনপির সাংসদ উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়ার পক্ষে তার ছেলে মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন।

বিকেলে মাঈনুল ইসলাম তুষার সরাইল উপজেলা বিএনপির পদবঞ্চিত নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সরাইল উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়ার ছেলে মাঈনুল ইসলাম তুষার বলেন, আমার বাবা এমপি ছিলেন অনেক বার, আপনাদের ভোটে তিনি নির্বাচিত হয়েছে। দলের সিদ্ধান্ত মেনে উনি পদত্যাগ করেছে, দলের বাইরে উনি যায় নাই। পদত্যাগ করার পরে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি বাবা যেহেতু জনগণের কাছে অনেক কমিটমেন্ট করেছেন। তাই বাকি দিন গুলো জনগণের পাশে থেকে কিছু কমিটমেন্ট পূরনের চেষ্টা করবো। আর আমার বাবা পদত্যাগ করার পর আমার বাবাকে বহিষ্কার করে নাই। যখন বাবা মনোনয়ন কিনেছে তখন দল থেকে বহিস্কার করেছে। যার কোন পদ নাই তাকে কিভাবে বহিষ্কার করে তা আমার জানা নাই।
সরকারের সাথে আঁতাত করেছেন কিনা জানতে চাইলে তুষার বলেন, আমার বাবা বাবা কোন দিন মিথ্যা বলে নাই আমরা মিথ্যা বলতে শিখি নাই। সাবেক সাংসদ রুমিন ফারহানা একজন সম্মানিত ব্যক্তি উনি সম্মপূর্ন মিথ্যা বলেছে। আমার বাবা কোন দিন লোভ করে নাই, আর রুমিন ফারহানা মিথ্যা দিয়ে রাজনীতি শুরু করেছে, সময় হলে সব বলবো।

উল্লেখ্য বিএনপি জাতীয় সংসদ থেকে পদত্যাগ করায় অন্যান্য আসনের মতো ব্রাহ্মণবাড়িয়া -২ আসনটি ও শূন্য হয়ে যায়। এই আসনের বিএনপির সাংসদ ছিলেন উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়া। তিনি জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি থেকে পদত্যাগ করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নেয়।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

সরাইল আশুগঞ্জ উপনির্বাচনে উকিল আব্দুস সাত্তারের মনোনয়ন দাখিল

আপডেট সময় ০২:১২:১৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৪ জানুয়ারী ২০২৩

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধিঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল আশুগঞ্জ) আসনের আসন্ন উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়ার পক্ষে তার ছেলে মাঈনুল ইসলাম তুষার মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন।

বুধবার (৪ জানুয়ারী) বিকেলে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে সাবেক বিএনপির সাংসদ উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়ার পক্ষে তার ছেলে মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন।

বিকেলে মাঈনুল ইসলাম তুষার সরাইল উপজেলা বিএনপির পদবঞ্চিত নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সরাইল উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়ার ছেলে মাঈনুল ইসলাম তুষার বলেন, আমার বাবা এমপি ছিলেন অনেক বার, আপনাদের ভোটে তিনি নির্বাচিত হয়েছে। দলের সিদ্ধান্ত মেনে উনি পদত্যাগ করেছে, দলের বাইরে উনি যায় নাই। পদত্যাগ করার পরে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি বাবা যেহেতু জনগণের কাছে অনেক কমিটমেন্ট করেছেন। তাই বাকি দিন গুলো জনগণের পাশে থেকে কিছু কমিটমেন্ট পূরনের চেষ্টা করবো। আর আমার বাবা পদত্যাগ করার পর আমার বাবাকে বহিষ্কার করে নাই। যখন বাবা মনোনয়ন কিনেছে তখন দল থেকে বহিস্কার করেছে। যার কোন পদ নাই তাকে কিভাবে বহিষ্কার করে তা আমার জানা নাই।
সরকারের সাথে আঁতাত করেছেন কিনা জানতে চাইলে তুষার বলেন, আমার বাবা বাবা কোন দিন মিথ্যা বলে নাই আমরা মিথ্যা বলতে শিখি নাই। সাবেক সাংসদ রুমিন ফারহানা একজন সম্মানিত ব্যক্তি উনি সম্মপূর্ন মিথ্যা বলেছে। আমার বাবা কোন দিন লোভ করে নাই, আর রুমিন ফারহানা মিথ্যা দিয়ে রাজনীতি শুরু করেছে, সময় হলে সব বলবো।

উল্লেখ্য বিএনপি জাতীয় সংসদ থেকে পদত্যাগ করায় অন্যান্য আসনের মতো ব্রাহ্মণবাড়িয়া -২ আসনটি ও শূন্য হয়ে যায়। এই আসনের বিএনপির সাংসদ ছিলেন উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়া। তিনি জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি থেকে পদত্যাগ করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নেয়।